অ্যান্টিবায়োটিকসহ অন্যান্য ঔষধের অপব্যবহারঃ পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা

নিয়ম বহির্ভূত ও অযাচিতভাবে অ্যান্টিবায়োটিকসহ অন্যান্য ঔষধ ব্যবহারের কারণে মানুষের শরীরের পাশাপাশি পরিবেশেরও মারাত্মক ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। বিশেষ করে ফার্মেসীগুলোর মাধ্যমে অ্যান্টিবায়োটিকসহ অন্যান্য ঔষধের অবাধ ও অপ্রয়োজনীয় ব্যবহার (অপব্যবহার) চলছে। বহু লোক ঔষধের জন্য সরাসরি এসব ফার্মেসীর দ্বারস্থ হয়ে থাকে।

ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করা অ্যান্টিবায়োটিকের কাজ। মানুষ সহ গবাদি পশুর শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক (বিশেষ করে পেনিসিলিন ও সেফালোস্পরিন গ্রুপ ) প্রবেশ করার পর এর কার্যকারিতা শুরু হয় এবং মলমূত্রের মাধ্যমে নির্গত হয়েও তা সক্রিয় থাকে। নির্গত হবার পর তা পানি এবং মাটিতে ছড়িয়ে পড়ে। পানি বাহিত হয়ে তা নদী ও শেষে সমুদ্র পর্যন্ত গড়ায়। অ্যান্টিবায়োটিক যেখানেই অবস্থান করে সেখানেই ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে থাকে। কিন্তু পানি ও মাটিতে বহু ব্যাকটেরিয়া বা অণুজীব রয়েছে যা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় অতি প্রয়োজনীয়। কিন্তু নিয়ম বহির্ভূত অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের ফলে পরিবেশ রক্ষাকারী এসব অণুজীবের অস্তিত্ব হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে। বিদেশে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের সুনির্দিষ্ট নিয়ম-কানুন থাকলেও আমাদের দেশে তা না থাকায় বৈধ-অবৈধভাবে ব্যাঙের ছাতার মত গড়ে উঠা ফার্মেসীসমূহ সামান্য জ্বরেও অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগ করে থাকেন। এছাড়া ঔষধ কোম্পানীসমূহের অযাচিত চাপ যেমন লোভনীয় মূল্য হ্রাস, উপহার প্রদান ইত্যাদির মাধ্যমে অ্যান্টিবায়োটিকসহ অন্যান্য ঔষধ প্রেস্ক্রাইব ও বিক্রয় করতে বাধ্য করান।অ্যান্টিবায়োটিক তার নিজস্ব ধর্মানুযায়ী অপরিবর্তিত অবস্থায় ব্যাকটেরিয়া বিরোধী কার্যক্ষমতা অক্ষুন্ন রেখেই মানুষের মলমূত্র দিয়ে নির্গত হয় এবং তা নর্দমা, নদী, মাটিতে মিশে গিয়ে পরিবেশের সহায়ক নাইট্রোজেন, কার্বন, অক্সিজেন চক্র রক্ষাকারী অণুজীবসমূহের বাসস্থান ধ্বংস করে দিচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার।

আমাদের দেশে প্রতি বছর আনুমানিক ২২ হাজার কোটি টাকার অ্যান্টিবায়োটিক ও অ্যান্টি ব্যাকটোরিয়াল এজেন্ট সহ অন্যান্য ঔষধ বিপুল পরিমানে ব্যবহার হচ্ছে যার পরিমাণ কয়েক হাজার টন কে ছাড়িয়ে যেতে পারে যা মলমূত্র দিয়ে এদেশের নদী মাটিতে স্তুপ হচ্ছে।

লেখক

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, অ্যান্টিবায়োটিক সাধারনত ছত্রাক নামক অণুজীব হতে প্রস্তুত করা হয় এবং শরীর বৃত্তীয় বিপাকীয় প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ না করার দরুণ এসব অ্যান্টিবায়োটিক অপরিবর্তিত অবস্থায় নিজ কার্যক্ষমতা অক্ষুন্ন রেখেই মল-মূত্র দিয়ে নির্গত হয়। ফলে মাটি-পানিতে অবস্থিত ব্যাকটেরিয়া এদের দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে এবং পরিবেশের জন্য যত সংখ্যক ব্যাকটেরিয়ার প্রয়োজন তার সংখ্যা হ্রাস পেতে পারে। ফলে পরিবেশের অস্তিত্ব রক্ষাকারী প্রধান চক্রসমূহ যেমনঃ অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, কার্বন ইত্যাদি চক্রের গতি ও হার কমে গিয়ে ধীর বিষক্রিয়ার মত পরিবেশ এর মৃত্যু ঘটাতে পারে যা মানবকুলকে মারাত্মক বিপর্যয়ের মুখে ঠেলে দিতে পারে। অন্যদিকে কৃত্রিম উপায়ে প্রস্তুত অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল এজেন্টসহ অন্যান্য ঔষধসমূহ শরীরবৃত্তীয় বিপাক ক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করতঃ বিপাকজাত পদার্থ রূপে মাটিতে ও পানিতে জমা হচ্ছে। এদের মধ্যে কোন কোনটি ব্যাকটেরিয়া বিরোধী ভূমিকা পালন করতে পারে, পাশাপাশি অপ্রয়োজনীয় রাসায়নিক পদার্থ রূপে বিপাকীয় পদার্থসমূহ (মেটাবোলাইটস) জমা হয়ে মাটি ও পানির ভৌত গঠনের পরিবর্তন ঘটিয়ে পরিবেশের প্রধান উপাদান সমূহের স্বাভাবিক কার্যক্রমের বিঘœতা সৃষ্টি করতে পারে। সাধারণত পরিবেশে প্রধান পাঁচটি অণুজীব যেমন ব্যাকটেরিয়া, একটিনো মাইসেটিস ছত্রাক, শৈবাল ও প্রোটোজয়া রয়েছে যাদের মধ্যে ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি ব্যাপক। মাটি ও পানিতে বিদ্যমান এসব অনুজীব ও জৈব-অজৈব পদার্থের পারস্পরিক ক্রিয়া ও সম্পর্ক নিয়ে পরিবেশের বাস্তুতন্ত্র (ঊপড় ঝুংঃবস) গঠিত। আণুবীক্ষণিক পরীক্ষায় দেখা গেছে প্রতি গ্রাম শুষ্ক মাটিতে প্রায় ১০০-১০০০ কোটি ব্যাকটেরিয়া রয়েছে, সে হিসেবে দেখা যায় প্রতি হেক্টর জমিতে প্রায় ১০০-৪০০০ কেজি জীবন্ত ব্যাকটেরিয়া আছে। এদের মধ্যে ব্যাসিলাস, ক্লসট্রিডিয়াম, করিনি ব্যাক্টেরিয়াম, সিউডোমোনাস, স্ট্যাপাইলোকক্কাস, স্ট্রেপটোকক্কাস এবং জ্যানথোমোনাস উল্লেখযোগ্য। বাস্তুতন্ত্রে এসব ব্যাকটেরিয়া বিয়োজক হিসেবে কাজ করে। এদের দেহ হতে ক্ষয়িত পদার্থ দিয়ে মৃত প্রাণী ও উদ্ভিদকে পচনে সাহায্য করার মাধ্যমে জীবের জটিল যৌগসমূহকে সরল বস্তুতে রূপান্তর করতঃ সবুজ উদ্ভিদ, শৈবালসহ শক্তি উৎপাদনকারী জীবসমূহের খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করে। আর এদেরকে ভক্ষণের মাধ্যমে মানুষসহ জগতের সকল প্রাণীকুল সূর্য হতে সঞ্চিত শক্তি প্রাপ্ত হয়। পাশাপাশি পচনশীল জীব হতে গ্যাসীয় উপাদান যেমন অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, কার্বন ডাই অক্সাইড ইত্যাদি অবমুক্ত করতঃ পরিবেশে এদের ভারসাম্য রক্ষা করে। অতএব, এটা স্পষ্ট প্রতীয়মান যে, পরিবেশ রক্ষাতে ব্যাকটেরিয়ার গুরুত্ব অপরিসীম। অতএব, ব্যাকটেরিয়াসহ পরিবেশের অন্যান্য উপাদানসমূহ (যেমনঃ পানি, মাটি ও বায়ু) যদি অ্যান্টিবায়োটিকসহ অন্যান্য ঔষধ দ্বারা আক্রান্ত হয় তাহলে ক্রমান্বয়ে পরিবেশের স্বাভাবিক গতি নষ্ট হতে বাধ্য।

তাই সময়ের দাবি হচ্ছে এই মুহুর্ত হতেই এ নিয়ে ব্যাপক অনুসন্ধান ও গবেষণা চালানো জরুরি।

উল্লেখ্য যে, বিদেশের অন্যান্য দেশে নতুন ঔষধ আবিষ্কার হলেই আমাদের দেশে তা বিভিন্ন ঔষধ কোম্পানিগুলো “ঋরৎংঃ ঃরসব রহ ইধহমষধফবংয” শ্লোগানে মুখরিত করে ডাক্তারদেরকে প্রেসক্রাইব করতে প্ররোচিত করেন। অথচ বিদ্যমান ঔষধগুলোর কার্যকারিতা সংশ্লিষ্ট রোগের ক্ষেত্রে হ্রাস পাইনি। আমাদের দেশে বিদ্যমান ঔষধগুলোর কার্যকারিতা সংশ্লিষ্ট রোগের ক্ষেত্রে হ্রাস পেলে সে ক্ষেত্রে নতুন ঔষধ আমদানি করা যেতে পারে। এ জন্য বিভিন্ন রোগের ক্ষেত্রে সরকারিভাবে “চিকিৎসা প্রোটোকল” নির্ধারণ করতঃ প্রোটোকলে উল্লেখিত ঔষধগুলোই কেবল বাজারজাত করা যাবে-এ ধরনের আইন প্রণয়ন করা উচিত। আরো উল্লেখ্য যে, অতীতে ঔষধ কোম্পানীগুলো নতুন নতুন ঔষধ দেশে বাজারজাত করে ডাক্তারদের ম্যাধ্যমে রোগীদের উপর গিনিপিগের মত পরীক্ষা চালিয়েছেন এবং মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার দরুন উক্ত ঔষধসমূহ বাজার হতে প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়েছেন। ততক্ষনে রোগীর যা হওয়ার হয়ে গেছে। এ ধরনের ঔষধগুলোর মধ্যে সিসাপ্রাইড, টারফেনাডিন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।